Home / ‍Scalping & Day Trading

‍Scalping & Day Trading

* স্ক্যাল্পিং

* ডে ট্রেডিং

 

ট্রেডিং স্টাইল এবং স্ট্রাটেজি

বিশ্বে কোটি কোটি মানুষ রয়েছে আর তাদের প্রত্যেকে একে অপরের থেকে আলাদা। তাদের প্রত্যেকের নিজস্ব অভ্যাস, প্রতিভা, পক্ষপাত, আবেগ এবং দুর্বলতা রয়েছে। আমাদের অনন্য ব্যক্তিত্বের কারণে, আমরা ভিন্নভিন্নভাবে ট্রেড করে থাকি। কেউ কেউ সহিংসভাবে ট্রেড করতে পছন্দ করে, অন্যরা সাচ্ছন্দে এবং ধীরে-সুস্থে ট্রেড করতে পছন্দ করে। কেউ কেউ পরিমিত লাভে খুশি থাকে, আর অন্যরা বড় ধরনের লাভের জন্য তাদের কষ্টের-উপার্জিত অর্থ বলিদান দিতে দ্বিধাবোধ করেনা।
টিউটোরিয়ালের এই সেকশনে, আমরা আপনাদের বিভিন্ন ট্রেডিং স্টাইল সম্পর্কে শেখাবো যাতে আপনারা এটা খুঁজে নিতে পারেন যে আপনার নিজস্ব বৈশিষ্ট্যের সাথে কোনটা খাপ খায়।

স্ক্যাল্পিং

সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্রেডিঙের মধ্যে এটি একটি, বিশেষ করে নবাগতদের মধ্যে। এটি দ্রুত-গতির, মন-কাঁপানো এবং অ্যাড্রিনাল প্রবর্তিত এক ধরনের ট্রেডিং।
স্ক্যাল্পিংয়ের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে, দিনের সবচেয়ে ব্যস্ততম সময়ে ট্রেড করা, খুব অল্প পরিমাণের পিপ নেয়া এবং তৎক্ষণাৎ ট্রেড থেকে বেরিয়ে যাওয়া। এখানে একটি ট্রেড থেকে আয় সীমিত হতে পারে কিন্তু, এ ধরনের ট্রেডাররা সারাদিনব্যাপী অনেকগুলো ট্রেড এক্সিকিউট করে নিজেদের অর্জন বাড়িয়ে নিতে পারে। কিন্তু স্ক্যাল্পারদের এই বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে যে কখন তাদের থামা উচিত। কারণ ওভারট্রেডিং তাদের অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্সে ধ্বস নামাতে পারে যদি সে খারাপ ট্রেডের পাল্লায় পড়ে।
এই ট্রেডিং স্টাইলের মূল সুবিধা হচ্ছে সম্ভাব্য উচ্চ রিটার্ন (তা, আপনি যদি খুব অল্প সময়ে ট্রেড এক্সিকিউটে দ্রুত এবং দক্ষ হয়ে থাকেন)। লিভারেজ স্ক্যাল্পারদের তাদের নিজস্ব স্বল্প সম্পদ থেকে অনেক বেশী আয় করার সুযোগ দেয়, কিন্তু আপনার সম্ভাব্য লসের কথাও মাথায় রাখতে হবে যা লিভারেজ অনুচিত উপায়ে ব্যবহার করলে হতে পারে। লিভারেজ দিয়ে এক পিপ আপনাকে অনেক অর্থ এনে দিতে পারে। অন্যদিকে, আপনার বিরুদ্ধে এক পিপ বিশাল লসও করাতে পারে। তাই, এটা হিট অথবা মিস টাইপের ট্রেডিং।
স্ক্যাল্পিং তাদের জন্য নয় যারা উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ বাতাবরনে ট্রেডে অভ্যস্ত নয়।
এ ধরনের ট্রেডিঙের চাহিদা হচ্ছে নিজের ট্রেডিং প্ল্যাটফর্ম সম্পর্কে গভীর জ্ঞান থাকা প্রয়োজন; আপনি নিজের কার্য প্রক্রিয়াতে খুব বেশী মাথা খাটাতে হবে না; আপনার সম্পূর্ণভাবে প্রাইসের মুভমেন্টের ওপর নজর রাখতে হবে।
একজন ট্রেডারের উদাহরণ-
আপনি যদি স্ক্যাল্পিয়ের প্রতি মনোনিবেশ করতে চান, তাহলে আপনি সর্বকালের সবচেয়ে সফল স্ক্যাল্পার- পল রয়টারের কাছ থেকে পরামর্শ নিতে আগ্রহী হতে পারেন। জানা মতে এই ট্রেডার Eurex এ সবচেয়ে লিকুইড কন্ট্রাকে স্ক্যাল্পিং করে ১০ বছর ধরে প্রতি বছর $৬৫-৭৮ মিলিয়ন আয় করেছে।
æআমি এমন মানুষ ছিলাম যে, প্রচুর পরিমাণে ট্রেড করতাম, মাঝে মাঝে দিনে ১০০টির মতো। আমি শুধু পরবর্তী ৩-৫টি টিকের আশায় থাকতাম”, স্ক্যাল্পার এই কথা বলেছে।
সে ওভারট্রেডিং যেন না করে তার জন্য কী করেছে? সে শুধু নিজের দৈনিক লাভ এবং লসের পরিমাণ নির্ধারণ করে রেখেছে। ট্রেডে ঢোকার আগে, সে নিজের জন্য সীমারেখা নির্ধারণ করে নিতো, প্রতিদিন সে কতোটুকু লস করবে। সে অনেক ঝুঁকিপূর্ণ পজিশন নিয়েছে, কিন্তু সেগুলো তার বিপরীতে গিয়েছিলো, সে নির্মমভাবে সেগুলো ক্লোজ করে দিয়েছে। সে সর্বদা বলেছেঃ “ট্রেডার হিসেবে, আপনার নিজস্ব কোন মতামত থাকতে পারবে না। আপনার যতোবেশী মতামত থাকবে, লস হওয়া পজিশন হতে বের হওয়াটা আপনার জন্য ততোটা কঠিন হবে।”
বিপরীতে, তার লাভ হওয়া ট্রেডের সময় সে খুব উগ্র হয়ে যেতো; সে বেশী ঝুঁকি নিতো, এবং লসের সময়ে তা কমিয়ে নিতো। মাঝে মাঝে এটা করা খুব কষ্টসাধ্য হয়ে যায়। তাই, পল রয়টার সর্বদা তার পাশে থাকার মতো একজনকে কাছে রাখতো, একজন নিরপেক্ষ, যে তাকে তার টার্মিনাল বন্ধ করতে বাধ্য করতে পারতো যখন যে সীমারেখার কাছাকাছি পৌঁছাতো।
তার ট্রেড দিকনির্দেশনাহীন ছিলো না, তার সিদ্ধান্ত মার্কেট ভালোভাবে অ্যানালিসিস পড়ে নেয়া হতো। টার্মিনাল খোলার পূর্বে, পল রয়টার সকল ইকনোমিক রিপোর্ট, প্রভাবশালী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং সেন্ট্রাল ব্যাংকের পরিচালকের বক্তৃতা রিলিজগুলো দেখে নেয়ার চেষ্টা করতো- যেকোনো কিছু যা প্রাইসের গতিপথের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে- যতক্ষণ না সে মার্কেটের অবস্থা ভালোভাবে বুঝতে পারতো।

ডে ট্রেডিং

ফরেক্সের ডে ট্রেডিং এক দিনে সম্পন্ন হওয়া ট্রেডিংগুলোর মধ্যে একটি। এই নিয়ম অনুসারে একটি ট্রেড খোলা অথবা বন্ধ হওয়ার মধ্যবর্তী সময়ের বিরতি কয়েক মিনিট অথবা কয়েক ঘণ্টা হতে পারে।
ইন্ট্রাডে ট্রেডিং এর ক্ষেত্রে ট্রেডারদের মুদ্রা বাজারে সর্বদা সক্রিয়ভাবে কার্যক্রম সম্পাদন করতে হয়। এই ব্যবস্থায় ফরেক্সে দিনের মধ্যে ট্রেড সম্পাদন করতে হয়।
ডে ট্রেডিং এ কিছু অসুবিধা থাকলেও, এই ধরনের ট্রেডিং অভিজ্ঞ ট্রেডারদের তুলনায় নতুন ট্রেডারদের কাছে অধিক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। ডে ট্রেডিং স্বল্প সময়ের মধ্যে অল্প আমানতে অধিক মুনাফা পেতে সাহায্য করে।
ইন্ট্রাডে ট্রেডিং এ লাভজনক ফলাফল পেতে ফরেক্স মার্কেটের মূল্য ওঠানামার সঠিক পূর্বাভাস করা আবশ্যক, অনেক বাহ্যিক বিষয় ফরেক্স মার্কেটেরে মূল্য ওঠানামার উপর প্রভাব ফেলে। সুতরাং আপনার ডে ট্রেডিং লাভজনক করতে মার্কেটের অবস্থা সম্পর্কে আপনাকে জানতে হবে এবং মুদ্রার হারের ওঠানামা সম্পর্কে ধারনা করতে হবে, একটা ট্রেড খোলা অথবা বন্ধ করার সময় এন্ট্রি অথবা এক্সিট পয়েন্ট সম্পর্কে দ্রুত ধারনা করাও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেই সাথে ধৈর্য এবং অধ্যবসায় সহকারে প্রযুক্তিগত বিশ্লেষণ সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করলে অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকিতে অর্থ উপার্জন করার সুযোগ থাকে।
ডে ট্রেডিং এর কিছু কৌশল রয়েছে। সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো স্ক্যাল্পিং- বিভিন্ন ডে অপশনগুলোর মধ্যে এই অপশনে দ্রুত ট্রেড খুলতে হয় এবং বন্ধ করতে হয়। ট্রেডার কয়েক পিপ মুনাফা লাভ করেই ট্রেড বন্ধ করে দেয় এবং অল্প সময়ের মধ্যে অনেকগুলো সফল ট্রেড সম্পন্ন করে মুনাফা লাভ করতে পারে।
আরেকটি জনপ্রিয় কৌশল হলো নিউজ ট্রেডিং। যে সকল ট্রেডারেরা নিউজ ট্রেডিং পছন্দ করে, তারা মার্কেটের বিভিন্ন ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে, বিভিন্ন পরিস্থিতিতে মুদ্রার ব্যবহার সম্পর্কে বিশ্লেষণ করে। মূলত নিউজ ট্রেডিং এর জন্য মার্কেট ও ট্রেড সম্পর্কিত অভিজ্ঞতার সমন্বয় করা প্রয়োজন।
আরেকটি ট্রেডিং সিস্টেম হলো পুলব্যাক সিস্টেম যেখানে মার্কেটের কম মূল্যের বিপক্ষে অবস্থান খোলা হয়।
সঠিক কৌশল ও সবচেয়ে কার্যকর ট্রেডিং উপকরণের সমন্বয়ে ডে ট্রেডিং একটা ভালো আয়ের উৎস হতে পারে এবং আপনার অবসর সময় আপনি লেনদেন ব্যয় করে অধিক অর্থ উপার্জন করতে পারেন।
*এটি আরেকটি শর্ট-টার্ম ট্রেডিং স্টাইল। ডে ট্রেডার সাধারণত দিনে একটি ট্রেড দেয় এবং দিন শেষ হওয়ার আগে তা আবার ক্লোজ করে দেয়।
ডে ট্রেডারের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে দিনের মধ্যে লাভ নিয়ে নেয়া; তারা তাদের পজিশন ওভারনাইট ওপেন রাখতে পছন্দ করে না।
এই ধরনের ট্রেডিং সেসকল এফএক্স ট্রেডারদের জন্য উপযুক্ত, যাদের হাতে সারাদিনব্যাপী মার্কেটের অবস্থা যাচাই করার মতো এবং ইন্ট্রাডে প্রাইসের ওঠানামার মধ্যে নিজেদের পজিশন নিয়ন্ত্রণ করার মতো সময় রয়েছে। স্ক্যাল্পিং যদি আপনাদের জন্য খুব দ্রুত হয়ে থাকে এবং সুইং ট্রেডিং খুব ধীরগতির হয়ে থাকে, তার মানে হচ্ছে আপনি একজন ডে ট্রেডার।
একজন ডে ট্রেডারের অ্যানালিটিক্যাল স্কিল ভালো হতে হয়, সক্রিয়ভাবে বিভিন্ন ইনডিকেটর এবং অন্যান্য টেকনিক্যাল ট্যুল ব্যবহার করে থাকে। এছাড়াও, অর্থনীতি সম্পর্কে তার ভালো ধারণা থাকতে হয় যাতে সে ফান্ডামেন্টাল ট্রেডিং সিগন্যাল চি‎িহ্নত করতে পারে। এছাড়াও, তার কাছে শক্তিশালী এক্সিট স্ট্রাটেজি থাকতে হবে যাতে সে দিনের শেষে তার ওপেনকৃত পজিশনগুলো সবচেয়ে বেশী লাভে ক্লোজ করতে পারে।
যেহেতু ডে ট্রেডাররা প্রায়ই তাদের পজিশন ওলট পালট করে, তারা সাধারণত লিকুইড কারেন্সিগুলোতে ট্রেড করে যাতে তাদের স্প্রেডের খরচ কম হয়।
একজন ট্রেডারের উদাহরণ-
Martin S. Schwartz হচ্ছে ডে ট্রেডারের একটি ভালো নিদর্শন, এই লোকের সাহস এবং বুদ্ধিমত্তা তার জন্য প্রচুর অর্থ নিয়ে এসেছে এবং উপযুক্ত নাম পিট বুল উপাধি পেয়েছে। সে জাতীয়ভাবে স্বীকৃতি পেয়েছে যখন সে ১৯৮৪ সালে ইউএস ইনভেস্টিং চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে। তার ডে ট্রেডিং স্টাইল সে সময়ে অপরাজেয় ছিলো। সে কখনো নিজের পজিশন খুব বেশি সময় ধরে রাখতো না। ট্রেডে এন্ট্রি নিতে সে টেকনিক্যাল ইনডিকেটর ব্যবহার করতো এবং অর্থনৈতিক রিপোর্ট এবং অন্যান্য ফান্ডামেন্টাল অ্যানালিসিসের সিগন্যাল দেখতো।
যখন নিউজ এবং ফান্ডামেন্টাল ডাটার সময় আসে, তখন বেশিরভাগ ট্রেডার প্রকাশিত সংখ্যার দিকে নজর দেয় আর চিন্তা করে যে মার্কেট নিউজ রিলিজের অনুযায়ী মুভ করছে না কেন। Marty Schwartz এর এই বিশ্বাস ছিলো যে ট্রেড ইকনোমিক রিলিজের প্রকাশিত সংখ্যার ভিত্তিতে হবে না, বড়ং মার্কেটে অংশগ্রহণকারীদের প্রতিক্রিয়ার ওপর যা ডাটা প্রকাশনার পরে দেখা যায়। Marty ট্রেডারদের তাদের নিজেদের ধারনা, চিন্তাভাবনার কথা ভুলে যেতে বলেছে, এবং মার্কেট কি বলছে তা শুনতে বলেছে, কারণ ট্রেডের উদ্দেশ্য আপনার ধরনা নিশ্চিত করা নয়, বড়ং অর্থ উপার্জন করা।
সে ডে ট্রেডার প্রাইসের দিক নির্ধারণ করতে প্রায়ই টেকনিক্যাল ইনডিকেটর ব্যবহার করতো। তার সর্বকালের পছন্দের ট্যুল ছিলো ১০-পিরিয়োডের এক্সপনেন্সিয়াল মুভিং এভারেজ (ইএমএ) এই টেকনিক্যাল ইন্সট্রুমেন্টটি Martyকে শর্ট-টার্ম ট্রেডে বুলিশ এবং বিয়ারিশ দৃশ্যকল্পের পার্থক্য করতে সহায়তা করতো।

Language »